মুক্তাগাছায় কুকুরের কামড়ে আহত শতাধিক

মুক্তাগাছা উপজেলার কুমারগাতা ইউনিয়নের চকনারয়ণপুর, কুমাগরাতা ও গাড়াইকুটি গ্রামে পাগলা কুকুররের কামড়ে প্রায়শতাধিক আহত হয়েছে। গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে আতঙ্ক।

(ফেরদৌস তাজ);  মুক্তাগাছা উপজেলার কুমারগাতা ইউনিয়নের চকনারয়ণপুর, কুমাগরাতা ও গাড়াইকুটি গ্রামে পাগলা কুকুররের কামড়ে প্রায়শতাধিক আহত হয়েছে। গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে আতঙ্ক।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার ও সোমবার কুমারগাতা, চকনারায়ণপুর ও গাড়াইকুটি গ্রামে কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়েছে অন্তত ২০ জন।

এ ছাড়াও গত এক সপ্তাহে ওই এলাকাগুলোতে আরও ৫০ জন সহ শতাধিক মানুষকে কামড়ানোর খবর পাওয়া গেছে। এতে নারী, শিশু ও বৃদ্ধরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার কুমারগাতা ইউনিয়নের চকনারায়ণপুর গ্রামের বাসিন্দা শহীদুল ইসলাম জানান গত সোমবার ফজরের নামাজ পড়ে আসার পথে পেছন থেকে তার পায়ে কামড় দেয় পাগলা কুকুরটি। এলাকাবাসী কুকুটিকে ধাওয়া করলে পাশের বাড়ির ইকবালের স্ত্রী নিপা আক্তারকে কামড় দেয়।

একই গ্রামের দুদু মিয়া জানান কুকুরটি হঠাৎ করে এসে তার পায়েই কামড় বসিয়ে দেয়। গাড়াইকুটি গ্রামের আকবর আলীর ছেলে ১৫ বছর বয়সি সুমন বাড়ির পাশে দোকানে দাড়িয়ে কেনাকাটা করছিলেন হঠাৎ একটি কুকুর পেছন থেকে এসে তার পায়ে কামড় দিয়ে ধরে রাখে। পরে তিন-চারজন মিলে কুকুরটিকে টেনেহিচড়ে তার পা ছাড়ায়। কামড়ের ফলে তার পায়ে অনেকটা ক্ষতের সৃষ্টি হয়।

এলাকাবাসী জানায়, কুকুর আতঙ্ক এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় এলাকাবাসীর স্বাভাবিক চলাফেরায় বিঘ্ন ঘটছে।

সূত্র জানায়, উল্লেখিত গ্রাম সমূহে ২টি পাগলা কুকুর দ্বারা প্রায়শতাধিক জনগণ আক্রান্ত হচ্ছে। স্থানীয় এলাকাবাসী প্রশাসনের প্রতি দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা না নিলে পাগলা কুকুরের কামড়ে আরও অনেকে আক্রান্ত হতে পারে।

সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান আকবর আলী সরকার মুঠোফোনে জানান, উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, এই বিষয়ে আমি অবগত নই, আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরো দেখুন

এই সম্মন্ধীয় সংবাদ

Back to top button
Close

অ্যাডব্লক সনাক্ত

আপনার বিজ্ঞাপন ব্লকার নিষ্ক্রিয় করে আমাদের সমর্থন বিবেচনা করুন